টেক বাংলা আইটি https://www.techbanglait.com/2021/07/7-Amazing-Home-Remedies-For-Acidity.html

অ্যাসিডিটি ও গ্যাস সমস্যার জন্য ঘরোয়া সমাধান

অ্যাসিডিটি ও গ্যাস সমস্যার জন্য ঘরোয়া সমাধান — অ্যাসিডিটি ও গ্যাস সম্ভবত মশলার প্রতি আমাদের অবাধ ভালবাসার মতো পুরানো। এটি একটি শব্দ যা পেটের গ্যাস্ট্রিক গ্রন্থিগুলোর দ্বারা অ্যাসিডের অতিরিক্ত উৎপাদন দ্বারা সৃষ্ট লক্ষণগুলোর সংকলনের জন্যে ব্যবহৃত হয়। আমাদের পেট মূলত হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিডকে গোপন করে আর যা আমাদের গ্রহণ করা খাবারের ভাঙ্গন ও হজমের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

অ্যাসিডিটি ও গ্যাস সমস্যার জন্য ঘরোয়া সমাধান

অ্যাসিডিটি — গ্যাস সমস্যা এবং অম্বল পোড়া জন্য ৭টি প্রাকৃতিক ঘরোয়া সমাধান

আমাদের বেশিরভাগের ক্ষেত্রে অ্যাসিডিটি বেশ বিরল। তবে হ্যাঁ যদি আপনি এক সপ্তাহের মাঝে ২ বারের বেশিবার্ন অনুভব করে থাকেন তবে আপনি হাইপার-অ্যাসিডিটি রোগে ভুগছেন। এটা তখনি ঘটে যখন আপনার পেটের মধ্যে অ্যাসিড, যেটা খাদ্য হজম করে থাকে বলে মনে করা হয়, এটি খাদ্য পাইপে প্রবেশ করতে পারে।

পেটে অতিরিক্ত গ্যাস হওয়ার কারণ | অ্যাসিডিটি হওয়ার কারণ 

অম্লতা বা অ্যাসিডিটি বেশ কয়েকটি কারণে হয় যেমন— খাবারের অনুশাসিত সময়, অনিয়মিত খাদ্যাভাস, স্ট্রেস, ফ্যাড ডায়েট, ধূমপান এবং অ্যালকোহল গ্রহণ করা, শারীরিক ক্রিয়াকলাপের অভাবজনিত কারনেই অম্লতা বা অ্যাসিডিটি ঘটতে পারে। তৈলাক্ত এবং মশলাদার খাবার, বাসি খাবার খাওয়ার ফলে এটিও ট্রিগার হতে পারে।

এসিডিটি থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

নারকেল জল

কোমল নারকেল পানি হচ্ছে প্রকৃতির ENO — একটি আয়ুর্বেদিক ওষুধ যা অ্যাসিডিটি ও গ্যাস সমস্যা থেকে তাৎক্ষনিকভাবে ত্রাণ নিয়ে আসে। এটির প্রাকৃতিক ক্ষারীয় প্রভাব আছে, যা আম্লিক পেটের রসকে ঠান্ডা করে। এমনকি অতিরিক্ত পরিমাণে অ্যাসিড থেকে জ্বালা রোধ করতে এটি পেটের উপরে একটি প্রতিরক্ষামূলক স্তর সংযুক্ত করে।

কিভাবে ব্যবহার করবেন—ফাইবার সমৃদ্ধ দিনে এক গ্লাস নারকেল পানি সহজে হজমে সাহায্য করে।

আমলা | গ্যাস অম্বলের ওষুধ

বদহজম এবং অ্যাসিডিটি ও গ্যাস জ্বালাপোড়া নিরাময়ের অন্যতম সেরা প্রাকৃতিক সমাধান হচ্ছে আমলা। এটি অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি যৌগগুলোতে সমৃদ্ধ যা পেট ফোলাভাব, কোমলতা এবং পেটে ব্যথা দূর করে। আমলা আমাদের দেহে পিট্টা (তাপ) কমাতে পরিচিত, জ্বলন্ত সংবেদন থেকে মুক্তি প্রদান করে।

কিভাবে ব্যবহার করবেন—আপনি হয় আমল সিদ্ধ করে রোদ শুকিয়ে নিতে পারেন বা চিবানোর জন্য শুকনো আমলার একটি প্যাক কিনতে পারেন

পেঁপে | এসিডিটি দূর করার উপায়

পেঁপের এনজাইমগুলো জটিল প্রোটিনগুলোকে ভেঙে ফেলার জন্য খুবই কার্যকর। এর মানে হচ্ছে আমাদের দেহগুলোকে এমন সকল খাবারগুলোকে ভেঙে ফেলার জন্যে কম অ্যাসিড তৈরি করতে হবে যা বেদনাদায়ক অ্যাসিডিটি ও গ্যাসকে মুক্তি দেয়।

কিভাবে ব্যবহার করবেন—আপনার প্রাতঃরাশে পাকা পেঁপে অথবা আপনার খাবারে রাতের খাবারের পোষাক হিসেবে যুক্ত করুন।

তুলসী পাতা | অ্যাসিডিটির সমস্যা সমাধানে ঘরোয়া টোটকা

তুলসীতে (তুলসী) সুদৃশ্য বৈশিষ্ট্য আছে যা অ্যাসিডিটি ও গ্যাস থেকে তাৎক্ষনিক উপশম দেয়।

কিভাবে ব্যবহার করবেন—দিনের বেলায় তুলছির কয়েকটি পাতা চিবিয়ে অভ্যাস করুন। বা যদি আপনি এই পদ্ধতি পছন্দ করেন তাহলে কয়েকটি পাতা পানিতে সিদ্ধ করুন আর একটি পবিত্র তুলসী চা দিয়ে অ্যাসিডিটি ও গ্যাস বিদায় জানান।

দারুচিনি | এসিডিটি হলে কি খাবেন

দারুচিনি হজমকারী এনজাইমগুলোকে উদ্দীপিত করে দ্রুত খাবার ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে। অতিরিক্তভাবে যখন অ্যাসিড খাবার পাইপে প্রবাহিত হয় তখনি এটি আলসার হওয়ার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

কিভাবে ব্যবহার করবেন—আপনি আপনার নিত্যদিনের চায়ের কাপে দারুচিনি যোগ করতে পারেন। অন্যথায়, আপনি মধু ও দারচিনি গুঁড়ো দিয়ে এককাপ গরম পানি পান করতে পারেন।

আদা | গ্যাস হলে কি খাওয়া উচিত

আদা অম্লতার জন্য আরো একটি দুর্দান্ত আয়ুর্বেদিক ঘরোয়া সমাধান। যেহেতু এটা পেটের ফোলাভাব দূর করে, আদা পেটের খাবারগুলোকে বুকের গহ্বরে ফিরে যাওয়ার সম্ভাবনা কমাতে সাহায্য করে। ফলস্বরূপ অ্যাসিডিক রস খাদ্য পাইপে প্রবাহিত হতে পারেনা।

কিভাবে ব্যবহার করবেন—আদা সকল ধরণের পানীর সঙ্গে ভালাে যায়। আপনি আদাকে গাজরের রস, এক গ্লাস স্মুদি অথবা এক কাপ চায়ের সঙ্গে উপভোগ করতে পারেন।

রসুন | অ্যাসিডিটি ও গ্যাস সমস্যার জন্য ঘরোয়া সমাধান

রসুনের ঔষধি গুণাবলী হাজার হাজার বছর ধরেই ব্যবহৃত হচ্ছে। অ্যাসিডিটির অন্যান্য প্রাকৃতিক সমাধানের মতো নয়, রসুন আমাদের পেটে হজম ব্যাকটেরিয়াগুলোর একটি ভারসাম্যপূর্ণ ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য সাহায্য করে। পরিমিতরূপে রসুন গ্রহণ করা, এটি অ্যাসিডিটি ও গ্যাস থেকে প্রায় অবিলম্বে পরিত্রাণে সাহায্য করতে পারে।

কিভাবে ব্যবহার করবেন—রসুন এর প্রাকৃতিক তাপ কমাতে একটি ছোট অংশ খোসা বাদ দিন এবং খোলা জায়গায় রেখে দিন। আপনি এটাকে ১০ ​​মিনিট পরে চিবিয়ে খেতে পারেন।

অ্যাসিডিটি ও গ্যাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাহায্য করে এমন খাবারগুলোর উপরের তালিকাটি বাদ দিয়ে, একজনের জন্য এটাকে জেনে রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে প্রতিদিনের ব্যায়াম ও ন্যূনতম স্ট্রেসসহ একটি সক্রিয় জীবনযাত্রা, দিনের বেলায় প্রচুর পরিমাণে পানীয় পান করা এবং যথাযথ ভাবে বিশ্রাম নেয়া অ্যাসিডিটি ও গ্যাসের সমস্যা বজায় রাখতে প্রয়োজনীয়।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া