টেক বাংলা আইটি https://www.techbanglait.com/2021/06/Hair-Care-Tips.html

চুল ভালো রাখার উপায় | চুল ভালো রাখার টিপস

চুল ভালো রাখার উপায় কি — "কেশই বেশ" এই কথাটির সাথে সকল বাঙালি-ই অবগত, তাই আমরা আজকের এই আর্টিকেলে কথা বলছি চুল নিয়ে। চুলের যত্ন নেয়া নিয়ে অনলাইনে বাংলাতে খুব কম সংখ্যক আর্টিকেল আছে। তাই আমরা আজ এই পোস্টের মাধ্যমে আপনাকে জানাবো কিভাবে সহজ পদ্ধতিতে, সহজ উপায়ে, ঘরোয়া পদ্ধতিতে, বিনা সাইড ইফেক্টে চুলকে সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল রাখবেন।

রুক্ষ চুল এর প্রতিকার

চুল ভালো রাখার উপায়

চুলে গরম তেল লাগান

বাদাম তেল ( আলমন্ড তেল ), নারকেল তেল, জোজোবা অয়েল, ক্যাস্টর অয়েল ইত্যাদি তেল চুলকে পুষ্টিপ্রদান করে। এই তেল গুলোতে অধিক পরিমাণে ভিটামিন-ই এবং আন্টি-অক্সিডেন্ট থাকে যা চুলের শুস্কতাকে দূর করতে সাহায্য করে এবং চুলকে রাখে আদ্র।

প্রথমে আপনার চুলের আন্দাজে পরিমাণ মতো তেল নিন এবং সেই তেল গরম করুন (ফুটাবেন না) তারপর সেই গরম তেল নিয়ে আপনার চুলের গোড়া থেকে ডগা অব্দি লাগান এবং ভালোমতো করে ম্যাসেজ করুন মিনিট পাঁচেক ধরে। তারপর একটি গরম তোয়ালে দিয়ে চুলটি বেঁধে রাখুন। এই অবস্থায় ৩০-৪০ মিনিট পর্যন্ত রেখে দিন। নির্দিষ্ট সময় ধরে রাখার পরে তোয়ালেটি খুলে ফেলুন আর শ্যাম্পু করে নিন।

আরও পড়ুনঃ কি কারণে কিডনিতে পাথর হয়

কেমিক্যাল ফ্রি শ্যাম্পু ব্যবহার করুন

সালফেট মুক্ত মৃদু শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। মার্কেটে বহুল বিকৃত কম দামের শ্যাম্পু গুলোর কেমিক্যাল গুলো আপনার চুলকে শুস্ক করতে অনেকাংশেই দায়ী থাকে। তাই এই ধরনের শ্যাম্পু ব্যবহার করা থেকে দূরে থাকাই আমাদের উচিত।

হেয়ার কন্ডিশনার এর ব্যবহার

শ্যাম্পু ব্যবহার করার পূর্বে ভালো করে চুল ধুয়ে ফেলার পরবর্তী সময়ে, ভেজা চুলের মাঝে হেয়ার কন্ডিশনার পাঁচ মিনিট  লাগিয়ে রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন। হেয়ার কন্ডিশনার চুলকে অনেক বেশি মসৃন করতে সাহায্য করে।

ডিম ও মেয়োনিজ

ডিম এবং মেয়োনিজের মাঝে খুব বেশি মাত্রায় প্রোটিন থাকার ফলে যার জন্যে এটি খুবই বেশি শুষ্ক চুলের ময়শ্চার ফিরে আনে। ডিম ও মেয়োনিজের মিক্স বানাবার ৩টি পদ্ধতি নিচে দেয়া হলো-

১) একটি ডিমের সাদা অংশ ও ২ চা-চামচ ঈষদ গরম মিক্স করে চুল এবং স্ক্যাল্পে আঙুলের যোগ দিয়ে বারবার ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসেজ করে লাগিয়ে নিন। আধাঘন্টা রাখুন আর তারপরে ঠান্ডা পানি দিয়ে চুল থেকে মিক্সটি ধুয়ে ফেলে শ্যাম্পু করে নিন।

২) ৩টি ডিম একটি বাটিতে নিন। দুই চামচ অলিভ অয়েল এবং এক চামচ মধু নিয়ে দুটিকে মিক্স করুন। তারপর মিশ্রণটি চুলে এবং স্ক্যাল্পে লাগিয়ে নিন। তারপরে কোনো প্লাষ্টিক কভার অথবা শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে চুলটি ৩০ মিনিট বন্ধ করে রাখুন। আধাঘন্টা হয়ে যাওয়ার পরে ঠান্ডা পানিতে মাথা ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন।

৩) ঈষদ উষ্ণ গরম পানিতে মাথাটি ধুয়ে নিন শুরুতেই। তারপর মেয়োনিজ নিয়ে চুলের গোড়া থেকে আগাঅব্দি ম্যাসেজ করুন। মিশ্রণটি যত মোটা করে লাগিয়ে নিবেন ততো ভালো। এটি হয়ে গেলে প্লাষ্টিক ক্যাপ অথবা শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে মাথাটা ঢেকে রাখুন ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘন্টা পর্যন্ত। তারপর আবার ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে শ্যাম্পু করে ফেলুন।

আরও পড়ুনঃ মেছতা কেন হয়, মেছতা দূর করার উপায়

খুশকি দূর করার উপায়

শ্যাম্পু বেশি করুন

এটা আপনার মাথার ত্বকের তেল কমাতে সাহায্য করতে পারে।

গ্রিন টি ব্যবহার করুন

গ্রিনটি, পেপারমিন্ট প্রয়োজনীয় তেল ও সাদা ভিনেগার একসঙ্গে করুন এবং এটি আপনার স্ক্যাল্পে ৫ মিনিটের জন্যে ম্যাসেজ করুন। তারপরে সালফেট মুক্ত শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করে এটি ধুয়ে ফেলুন। গ্রিনটি এবং পেপারমিন্ট প্রয়োজনীয় তেলটিতে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টস ও অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল ফিচার আছে যা একটি স্বাস্থ্যকর মাথার ত্বককে অনেক বেশি উন্নত করতে পারে আর আপনার চুলের অবস্থাও যাতে শুষ্ক এবং বিরক্ত না হয়।

আপেল সিডার ভিনেগার

সম পরিমাণ পানির সঙ্গে ভিনেগার পাতলা করুন। আপনার শ্যাম্পুর বিকল্প হিসেবে এই মিশ্রণটি মাথার চুলে ব্যবহার করুন। অ্যাপল সিডার ভিনেগার কিন্ত খুশকির কারণও হতে পারে এমন ছত্রাককে রিমুভ করে ফেলতে পারে। এটা চুলকানির মতো সমস্যা থেকে মুক্তি দেয় এবং খুশকি কমাতে সহায়তা করে।

নারকেল তেল ম্যাসেজ

চা গাছের তেলের ৫-১০ ফোঁটা ৫ টেবিল চামচ নারকেল তেলের সঙ্গে একত্রিত করুন। রাতে আপনার মাথার ত্বকের মধ্যে মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন এবং পরবর্তীতে সকালে এটি পরিস্কার করে ফেলুন বা আপনাকে যদি সময়ের জন্য চাপ দেওয়া হয় তবে এটি ৩০ মিনিটের জন্য এইভাবে রেখে দিন এবং পরে তা ধুয়ে ফেলুন। নারকেল তেল ছত্রাক এর বিরুদ্ধেও লড়াই করে যা চুলের খুশকি দূর করতে সাহায্য করতে পারে। চা গাছের তেল আপনার মাথার চুলগুলিতে চকচকে ফিরিয়ে আনার জন্য সহায়তা করবে।

লেবুর রস

আপনার স্ক্যাল্পে ২ টেবিল চামচ লেবুর রস ম্যাসাজ করে নিন এবং এটি ১ মিনিটের জন্য বসতে দিন। তারপরে ১ চা চামচ লেবুর রস ও ১ কাপ পানি মিশ্রিত করুন। মিশ্রণটি দিয়ে আপনার চুলকে ধুয়ে ফেলুন। সেরা ফলাফল পাওয়ার জন্য আপনার প্রতিদিনের শাওয়ারের পূর্বে এই ডানটি পুনরাবৃত্তি করুন। টাটকা লেবুর রসে অ্যাসিড আছে যা ছত্রাককে ভেঙে ফেলতে সাহায্য করে যা খুশকি তৈরি করতে পারে। এটিতে কঠোর রাসায়নিকও নাই যা আপনার মাথার ত্বকের তেমন কোনো ক্ষতি করতে পারে।

বেকিং সোডা

আপনার চুল ভেজা ও আপনার মাথার ত্বকে ১ টেবিল চামচ বেকিং সোডা ছড়িয়ে দিন। এক মিনিটের মতো রেখে এটি ধুয়ে ফেলুন। এটি ভালোভাবে ধুয়ে ফেলার পরবর্তী সময়ে আপনি শ্যাম্পু করতে পারেন। বেকিং সোডা অধিক পরিমাণে ছত্রাকের বিরুদ্ধে লড়াই করে আর আপনার মাথার ত্বকে এড়াতে বিরক্ত না করে এক্সফোলিয়েট করতে সাহায্য করতে পারে। বেকিং সোডা অতিরিক্ত তেল ভিজিয়ে রাখে।

আরও পড়ুনঃ আম খাওয়ার উপকারিতা

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া